Home রাজনীতি ব্রিগেডে আসছেন না বুদ্ধবাবু, বার্তা দিলেন ‘সফল হোক ব্রিগেড’

ব্রিগেডে আসছেন না বুদ্ধবাবু, বার্তা দিলেন ‘সফল হোক ব্রিগেড’

মুহূর্তের জন্য হলেও ব্রিগেডে রবিবারের সমাবেশে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে চাই। ব্যক্তিগতভাবে না আসতে পারলেও ওই সভায় অন্তত একটি ‘ই-বার্তা’ দিন বুদ্ধদেব। বাম ছাত্র-যুবদের এটাই ছিল আরজি। আর তা নিয়ে রীতিমত ফাঁপড়ে পড়েছিলেন বুদ্ধবাবুর পরিবার। শনিবার রাতে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য নিজে বার্তা দিলেন।

তিনি লিখেছেন, “ব্রিগেড সমাবেশ নিয়ে বিভিন্নভাবে খবরাখবর নেওয়ার চেষ্টা করছি। শুনে বুঝতে পারছি বহু মানুষ সমাবেশে আসবেন এবং অনেকে এসে গেছেন। বড় সমাবেশ হবে। এরকম একটা বৃহৎ সমাবেশে যেতে না পারার মানসিক যন্ত্রণা বোঝানো যাবে না। মাঠে ময়দানে কমরেডরা লড়াই করছেন আর আমি শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে ডাক্তারবাবুদের পরামর্শ মেনে চলেছি। ময়দানে মিটিং চলছে আর আমি গৃহবন্দী যা কোনদিন কল্পনাও করতে পারিনি। সমাবেশের সাফল্য কামনা করছি”।

২০১৯ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি বামফ্রন্টের শেষ ব্রিগেড সমাবেশে অসুস্থ শরীর নিয়েই গিয়েছিলেন বুদ্ধদেব। চিকিৎসকের পরামর্শ মেনেই। কিন্তু মঞ্চে ওঠেননি। তা-ও চিকিৎসকের পরামর্শ মেনেই। মঞ্চের পিছনে গাড়িতে বসে বক্তব্য শুনছিলেন তিনি। সর্বক্ষণের সঙ্গী ছিল অক্সিজেন সিলিন্ডার। নাকে অক্সিজেনের নল পরিহিত সেই বুদ্ধদেবের ছবি দেখে খানিকটা আক্ষেপই করেছিল বামজনতা।

প্রসঙ্গত, ছয়ের দশকে ছাত্র রাজনীতি থেকে রাজনৈতিক জীবন শুরু করার পর থেকে এখনও পর্যন্ত এমন কোনও ব্রিগেড সমাবেশ হয়নি, যেখানে তাঁর উপস্থিতি ছিল না। সেই সূত্রেই সিপিএম কর্মীদের প্রবল ইচ্ছা— ব্রিগেডের সভায় অন্তত একটি ‘ই-বার্তা’ দিন বুদ্ধদেব। রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ থাকায় তাঁকে বাদ দিয়েই ব্রিগেড সমাবেশের প্রস্তুতি শুরু করে সিপিএম।

বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস একযোগে ব্রিগে়ড সমাবেশের আয়োজন করেছে। এবারের ভোটযুদ্ধ সিপিএম তথা বামফ্রন্টের কাছে অত্যন্ত কঠিন লড়াই। তাই বাম ছাত্র-যুবদের ল়ড়াইয়ে বুদ্ধদেববাবুর এই বার্তা অনেক বেশি ‘অর্থবহ’ হবে বলে মনে করছেন দলের নেতা-কর্মীরা।

ট্রেন্ডিং নিউজ