Home রাজনীতি তৃণমূল প্রার্থীর দলবদলের ইতিহাস মনোনয়ন জমার দিয়েই 'অন্যসুর' তৃণমূল প্রার্থীর!

তৃণমূল প্রার্থীর দলবদলের ইতিহাস মনোনয়ন জমার দিয়েই ‘অন্যসুর’ তৃণমূল প্রার্থীর!

ভোটের আগে কিংবা ভোটের সময় বিজেপির (bjp) মনস্তাস্ত্বিক চাপই শুধু নয়, ভোটের পরে ফল বেরনোর পর দল ভাঙানোর আশঙ্কা করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (mamata banerjee) নিজেই। যেই কারণে দলের জন্য টার্গেটও বেঁধে দিয়েছেন তিনি। তারই মধ্যে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েই দলবদলের জল্পনা বাড়িয়ে দিলেন রায়গঞ্জের তৃণমূল (trinamool congress) প্রার্থী।

২০১৬-তে বাম-কংগ্রেস জোট প্রার্থী হিসেবে উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন কানাইয়ালাল আগরওয়াল। পরে তিনি তৃণমূলে যোগ দেন। সেই সময় বলেছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের স্বার্থে তৃণমূলে যোগদান। পরবর্তী সময়ে ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে তিনি তৃণমূলের টিকিটে রায়গঞ্জ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। কিন্তু বিজেপির কাছে হেরে যান।

২০১৬-তে বাম-কংগ্রেস জোট প্রার্থী হিসেবে উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন কানাইয়ালাল আগরওয়াল। পরে তিনি তৃণমূলে যোগ দেন। সেই সময় বলেছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের স্বার্থে তৃণমূলে যোগদান। পরবর্তী সময়ে ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে তিনি তৃণমূলের টিকিটে রায়গঞ্জ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। কিন্তু বিজেপির কাছে হেরে যান।

কানাইয়ালাল আগরওয়ালকে এবার রায়গঞ্জ বিধানসভা আসন থেকে মনোনয়ন দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। শুক্রবার তিনি মনোনয়ন পত্র জমে দেন। মনোনয়ন পর্ব মিটে যাওয়ার পরেই তিনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। সেই সময় তাঁর কাছে প্রশ্ন করা হয়, যদি তিনি জেতেন আর সরকার যদি অন্যদলের হয়, তাহলে কী করবেন। সেই সময় তৃণমূল প্রার্থী বলেন, রায়গঞ্জবাসীর সঙ্গে কথা বলে ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত নেবেন। যাঁরা ভোট দিয়ে জেতাচ্ছেন তাঁদের সঙ্গে কথা বলে নেওয়াটা জরুরি বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। সঙ্গে তিনি বলেছেন, গতবারে ইসলামপুর থেকে জয়লাভের পরে ভোটদাতাদের সঙ্গে কথা বলেই তিনি তৃণমূলে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এরপরেই তৃণমূল প্রার্থীর ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছে।

তৃণমূল প্রার্থীর মন্তব্য নিয়ে কটাক্ষ করেছেন ওই আসনের বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণ কল্যাণী। তিনি বলেছেন, তৃণমূল প্রার্থী বুঝে গিয়েছেন, জিতছেন না। সেই কারণে সহানুভূতি আদায়ের চেষ্টা করছেন। বিজেপির জেলা নেতৃত্ব বলছে, তৃণমূল প্রার্থীর দলবদলের ইচ্ছা রয়েছে। তাহলে মানুষ কেন তাঁকে ভোট দেবেন।

ট্রেন্ডিং নিউজ