নির্মাণের ২ মাসের মধ্যে বীরভূমের খয়রাশোলে শুক্রবার রাতে পুড়ে ছাই ইসকন মন্দির

বীরভূমের খয়রাশোলে নির্মাণের ২ মাসের মধ্যে আগুনে পুড়ল ইসকন মন্দির। খড়়ের চালের মন্দিরটি শুক্রবার গভীর রাতে জ্বলতে দেখেন স্থানীয়রা। এই ঘটনার পিছনে নাশকতার আশঙ্কা করছেন মন্দিরের পূজারি ও ভক্তরা।

শুক্রবার রাতে শীতে তখন ঘরবন্দি খয়রাশোলের কেন্দ্রগড়িয়া এলাকা। তারই মধ্যে জ্বলতে থাকে গোটা মন্দির। মুহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ে মন্দিরের গোটা চালায়। জ্বলতে থাকে পাশের বেড়া। আগুনের তীব্রতা এতটাই ছিল যে নেভানোর চেষ্টা পর্যন্ত করেননি কেউ।

স্থানীয় বিজেপি বিধায়ক অনুপ সাহা জানিয়েছেন, মাস দুয়েক আগে কেন্দ্রগেড়িয়ায় তৈরি হয়েছিল ইসকন মন্দিরটি। তার পর থেকেই মন্দিরটির ক্ষতি করার চেষ্টা হচ্ছিল। গত শুক্রবার রাতে মন্দিরটিতে আগুন লাগানোর চেষ্টা হয়েছিল। তখন স্থানীয়রা টের পেয়ে যাওয়ায় দ্রুত আগুন নিভিয়ে ফেলেন তাঁরা। তবে পাশের একটি গোয়ালঘর পুড়ে যায়। তার পর আমরা থানায় অভিযোগ করে মন্দিরটির নিরাপত্তা বাড়ানোর দাবি করি। কিন্তু সেই দাবি কানে তোলেনি প্রশাসন। শুক্রবার রাতে গ্রামবাসীরা মন্দিরটি জ্বলতে দেখেন। সম্ভবত কেরোসিন ঢেলে কেউ আগুন ধরিয়ে দিয়েছে।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের উত্তর বীরভূম সাংগঠনিক জেলার সম্পাদক সরোজ সাঁই বলেন, ‘শনিবার সকালে আমরা খবর পাই কেন্দ্রগড়িয়ায় ইসকন মন্দির জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে কে বা কারা আগুন দিয়েছে তা কেউ বলতে পারেনি। এর আগেও মন্দিরটি পোড়ানোর চেষ্টা হয়েছিল। শনিবার রাতে দুষ্কৃতীরা সফল হয়। আমরা পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছি’। এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তের দাবিতে শনিবার বীরভূমে ৫ জায়গায় পথ অবরোধ করে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। অবিলম্বে দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারির দাবি জানিয়েছে তারা।

Latest articles

Related articles